রাজৈরে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু পরিবারের দাবী হত্যা 

https://manobkollan.com/9386/

রাজৈরে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু পরিবারের দাবী হত্যা

মাদারীপুরের রাজৈরে পারভেজ হাওলাদার নামে (২২) এক যুবকের রহস্যজনক মুত্যু হয়েছে । পরিবারের দাবী তাকে গলায় রশিতে ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়েছে । (২৫ ডিসেম্বর) শুক্রবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে পারভেজকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানায়, তাকে হাসপাতালে আনার অাগেই মৃত্যু হয়েছে । নিহত পারভেজ হাওলাদার রাজৈর উপজেলার কবিরাজপুরের কাচাবালি গ্রামের ছরোয়ার হাওলাদারের ছেলে । পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মাদারীপুরে মর্গে প্রেরন করেছে ।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার কবিরাজপুরের কাচাবালি গ্রামের ছরোয়ার হাওলাদারের ছেলে পারভেজ হাওলাদারের সাথে একই এলাকার রিয়াদসহ কয়েকজন যুবকের সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দির্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। গত( ২৪ ডিসেম্বর) বৃহস্পতিবার সকালে পারভেজ স্থানীয় কবিরাজপুর বাজারে গেলে রিয়াদসহ কয়েক যুবক তাকে গলায় গামছা পেচিয়ে বাজারের অদুরের পানের বরজের কাছে নিয়ে মারধোর করে। পরে স্থানীয় লোকজন পারভেজকে উদ্ধার করে রাজৈর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় শনিবার(২৬ ডিসেম্বর) সকালে এক শালিস মিমাংসার কথা ছিলো । উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রদীপ চন্দ্র মন্ডল বলেন, পারভেজকে মৃত অবস্থায় দেখে আমি পুলিশকে অবহিত করি । নিহত পারভেজ হাওলাদারের পিতা ছরোয়ার হাওলাদার বলেন, দুস্কৃতিকারীরা আমার ছেলেকে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করে ঘরের দুয়ারে রেখে গেছে । অামি এর বিচার চাই। রাজৈর থানার অফিসার ইনচার্জ মো শেখ সাদিক বলেন, মৃত্যুর সঠিক কারন উদঘাটনের জন্য লাশ উদ্ধার করে মাদারীপুর মর্গে প্রেরন করেছি ।

লাশের বা হাতে ব্লেডের অসংখ্য আচঁর ও গলায় ফাঁসের চিহ্ন রয়েছে । ময়না তদন্তের রির্পোট হাতে পেলে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে । এদিকে পারভেজের মুত্যু হত্যা না আত্তহত্যা এনিয়ে এলাকায় বেশ কানা ঘুষা চলছে। কেউ বলেছে পূর্ব শত্রুতার জেরে পারভেজকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। আবার কেউ বলেছে পারভেজ আত্মহত্যা করেছে। তবে পারভেজের মৃত্য হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে রহস্যের ধ্রম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

Author: Mansur Talukder

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *