নবীগঞ্জে পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে বৃদ্ধ নিহত – মানব কল্যান

 

হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দেওপাড়া গ্রামে পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে সৈয়দ আলী নামে এক ব্যাক্তি নিহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার রাত ৭টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের দেওপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এতে দেওপাড়া গ্রামের মৃত রাহাত উল্ল্যাহর পুত্র সৈয়দ আলী (৬০) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক ২জনকে আটক করেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের দেওপাড়া গ্রামের সৈয়দ আলীর পুত্র সুমন মিয়া, একই গ্রামের মৃত মতিন মিয়ার পুত্র রুবেল মিয়ার কাছে ৫শ টাকা পাওনা ছিল। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রুবেলের কাছে পাওনাকৃত ৫শ টাকা ফেরত চায় সুমন মিয়া। পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে সুমন ও রুবেলের মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়।
পরে স্থানীয় মুরুব্বিরা পরিস্থিতি শান্ত করে ওইদিনই ইফতারের পরপর বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে উভয়কে যারযার বাড়িতে পাঠিয়ে ইফতারেরন পর স্থানীয় দেওপাড়া বাজারে স্থানীয় মুরুব্বিয়ানসহ বিষয়টি মীমাংসার বসেন। এসময় উক্ত বৈঠকে সৈয়দ আলী, তার পুত্র সুমন মিয়াসহ আত্মীয় স্বজন ও রুবেল মিয়ার আত্মীয়স্বজন উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শুরু হওয়া মাত্রই হঠাৎ করে রুবেল ও তার লোকজন সুমনের পিতা সৈয়দ আলী ও চাচা আনছব আলীর উপর হামলা চালায়। এসময় রুবেল তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে সৈয়দ আলী ও আনছব আলীকে আঘাত করে রক্তাক্ত করে। গুরুতর অবস্থায় আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক সৈয়দ আলীকে মৃত ঘোষণা করেন। এবং আশংকাজনক অবস্থায় আনছব আলীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আজিজুর রহমান নেতৃত্বে গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ কাওছার আলমসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন। বাহুবল থানা পুলিশের সহযোগীতায় তাৎক্ষণিক ছুরিকাঘাতকারী ঘাতক রুবেল ২জনকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আজিজুর রহমান নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এখন সেখানের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এঘটনায় মূল হোতা রুবেলসহ ২জনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের এর প্রস্তুতি চলছে। অপরাপর আসামীদের ধরতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Author: Anamul Gazi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *