ওসমানীনগর উপজেলার খছরুপুর থেকে আদমপুর রাস্তার নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ

 

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি।

খছরুপুর থেকে আদমপুর রাস্তার নির্মাণকাজে অনিয়মের অভিযোগ
ওসমানীনগর উপজেলার খছরুপুর থেকে আদমপুর রাস্তার নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ নির্মাণকাজে অনিয়ম এবং দায়সারাভাবে কাজ করছেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি দরপত্রের নির্দেশনা অনুসারে কাজ পরিচালিত হচ্ছে। এলজিইডি’র অর্থায়নে নতুন রাস্তারকাজ বাস্তবায়নে কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স মাহিয়া এন্টারপ্রাইজ। জনগুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তা দিয়ে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের সর্বসাধারন চলাচল করেন।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকেরা রাস্তার নির্মাণ কাজ করছেন। কিন্তু হাওর এলাকার মধ্যদিয়ে বয়ে যাওয়া রাস্তাটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার পরে কতদিন রাস্তাটি ঠিকে থাকতে পারে এনিয়ে এলাকার মানুষের মধ্যে নানান সমালোচনা। গার্ডওয়াল বিহীন হাওরের মধ্যেদিয়ে বয়ে যাওয়া সড়কটি বর্ষাকালে হাওরের উত্তাল পানির ঢেউয়ে ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেশি।

এব্যাপারে ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান বলেন, ঠিকাদারের লোকেরা তাদের ইচ্ছেমতো কাজ করছেন। কিন্তু রাস্তার বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে গার্ডওয়াল খুবই প্রয়োজন। না হলে বর্ষাকালে হাওরের পানি বৃদ্ধিপেলে গার্ড ওয়ালবিহীন এই রাস্তা ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যন অবগত রয়েছেন।

স্থানীয় জামাল মিয়া ও কয়ছর আহমদ বলেন, দায়সারাভাবে করা এ কাজ কয়েক মাসও টিকবে কিনা তা’নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। শুরুতে রাস্তার কাজে ব্যবহৃত সামগ্রী সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয়নি। এখন বিটুমিন দ্বারা রাস্তার পিচের কাজ করা হচ্ছে কিন্তু সঠিকভাবে রোলার করা হচ্ছেনা। রাস্তার অনেকাংশে সঠিকভাবে কাজ না হওয়াতে গর্তের সৃষ্টি দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থা বিরাজমান থাকলে নির্মানের কয়েকমাস পরেই রাস্তাটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে যাবে।

ঠিকাদার তাঁর মনগড়ামতো কাজ করছেন। গ্রামের কেউ প্রতিবাদ করলে ঠিকাদারের লোকেরা তাদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করে। এমনকি রাস্তার বিষয়ে স্থানীয় কোনোব্যক্তি কিছু বলতে চাইলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার পরিকল্পনামন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় প্রদান করে লোকজনদের ধাবিয়ে রাখেন। তবে রাস্তাটির কাজের মান নিম্ন হওয়ার বিষয় নিয়ে ওসমানীনগর উপজেলা প্রকৌশলী বরাবর লিখিত দেওয়া হয়েছে। উর্ধ্বোতন কর্তৃপক্ষের নিকট এলাকাবাসীর দাবী দায়সারাভাবে কাজের প্রতিকার করে সরকারী সিডিউল মোতাবেক কাজ করা হোক।

এব্যাপারে ওসমানীনগর থানার উপ-প্রকৌশলী এসএম আব্দুল্লাহ বলেন- তিনি মুন্সিগঞ্জ থেকে সদ্য যোগদান করেছেন। এ বিষয়ে তিনি অবগত নয়।

Author: Anamul Gazi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *