একজন আরব পিতা তার মেয়েকে বিয়ের সময় যে ৬টি উপদেশ দিয়ে তাকে তার স্বামীর হাতে তুলে দিলেন

একজন আরব পিতা তার মেয়েকে বিয়ের সময় যে ৬টি উপদেশ দিয়ে তাকে তার স্বামীর হাতে তুলে দিলেন

একজন আরব পিতা তার মেয়েকে বিয়ের সময় যে ৬টি উপদেশ দিয়ে তাকে তার স্বামীর হাতে তুলে দিলেন

একটি শিক্ষনীয় বিষয়ঃ
একজন আরব পিতা তার মেয়েকে বিয়ের সময় ৬টি উপদেশ দিয়ে তাকে তার স্বামীর হাতে তুলে দিলেন।

সেই ৬ উপদেশ গুলো নিম্নে তুলে ধরা হলঃ-

১ম. উপদেশঃ→হে, আমার স্নেহের কন্যা!
তোমার যা আছে, তা নিয়েই তুমি সন্তুষ্ট থাকবে।
এমনকি অতি সাধারণ খাবার নিয়েও অসন্তুষ্ট হবে না। মনে রাখবে! পরিতৃপ্তি আর ভালবাসার সাথে শুকনো রুটি আর পানি জোরপূর্বক অনেক দামি খাবার খাওয়ার চেয়েও উত্তম।

২য়. উপদেশঃ→হে, আমার মমতাময়ী কন্যা!
তোমার স্বামী তোমাকে যা বলে,
মনোযোগের সাথে তুমি তা মেনে চলবে।
তাকে সবচেয়ে বেশি গুরত্বের জায়গাটা দিবে,
আর তোমার স্বামী যেভাবে চায় ঐভাবেই নিজেকে সাজাবে।
এভাবে একটা সময় তুমি তার হৃদয়ের মধ্যে জায়গা করে নিবে।
কারণ, মানুষ তার কাজের দ্বারাই ভালোবাসার পাত্রে পরিণত হয় ; অন্যকিছু দিয়ে নয়।

৩য়. উপদেশঃ→হে, আমার আদরের কন্যা!
তার সবচেয়ে কাছের বন্ধু হও, আর কখনোই তাকে অমান্য করবে না।
যদি তুমি তার গোপনীয়তা প্রকাশ করে দাও,
তবে তোমার উপর সে বিশ্বাস হারাবে,
আর যদি তাকে অমান্য করো,
তাহলে তার ক্রোধ থেকে তুমি নিজেকে আড়াল করতে পারবে না।

৪র্থ. উপদেশঃ→হে, আমার আদরের দুলালি!
আর যখন তোমার স্বামী কষ্টে থাকে,
তখন তার সামনে উচ্ছাস প্রকাশ করবে না,
বরং তার দুঃখের ভাগিদারী হও।
যখন সে হাঁসি-খুসি থাকে, তখন তোমার ভিতরে লুকায়িত অভিযোগ গুলো তার দিকে ছুড়ে মারবে না।

কখনোই তোমার স্বামীর ব্যক্তিত্বকে খাটো করবে না। তার মুখে হাসি দেখলে তুমিও তার সুখের অংশ হও। কখনই তার হাসিমুখে কষ্টের ছাপ আনবে না। কারণ, এর ফলে একটা সময় তুমি তাদের একজন হয়ে যাবে যারা তার কষ্টের কারণ হয়।

৫ম. উপদেশঃ→হে, আমার নয়নমণি কন্যা!
যদি তুমি তোমার স্বামী থেকে সম্মান চাও,
তবে শুরুতে তার উপর তোমার অগাধ শ্রদ্ধা থাকতে হবে।
আর তখন সে তোমার জীবনের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধুতে পরিণত হবে।

৬ষ্ট. উপদেশঃ→হে, আমার অতি আদরের ও স্নেহের কন্যা!
সারাজীবন এই কথাগুলো তুমি মেনে চলবে।
সুখের ফুল ততক্ষণ পর্যন্ত তোমার জীবনে ফুঁটবেনা যতক্ষন তুমি তোমার স্বামীর ইচ্ছাকে নিজের ইচ্ছার থেকে বেশি প্রাধান্য না দিবে।

হে, আমার অতি আদরের ও স্নেহের কন্যা!
তোমাকে এই উপদেশ গুলো দিয়ে আমি তোমাকে আল্লাহর নিকট হস্তান্তর করছি।
আল্লাহ তোমার সহায় হোক আর সকল শয়তানের শয়তানি নজর থেকে তোমায় হেফাজত (রক্ষা) করুক। – আমিন!

শিক্ষানীয় পোষ্ট

ফেসবুকে মানব কল্যাণ

Author: Anamul Gazi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *