1. admin@manobkollan.com : admin :
  2. mkltdnews@gmail.com : Anamul Gazi : Anamul Gazi
  3. mkltd2020@gmail.com : Mansur Talukder : Mansur Talukder
  4. sitemaker9866@gmail.com : mksabbirrahman :
  5. riff1431@gmail.com : Shariar R. Arif : Shariar R. Arif
  6. skjubayer.barguna@gmail.com : sk2021 :
  7. dxd9807@gmail.com : Sohel Mahmud : Sohel Mahmud
ডিমলায় হতে যাচ্ছে সোলার প্যানেল নির্মাণ - মানব কল্যাণ - Manobkollan
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
আসসালামু আলাইকুম  মানবকল্যাণ এর সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য  আপনাকে অভিনন্দন। আমরা আপনাদের সহযোগীতায় একদিন শিখরে পৌছাব "ই"। ইনশাআল্লাহ । বিজ্ঞপ্তিঃ সারাদেশব্যপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলিতেছে।   ই-মেইলঃ info@manobkollan.com ফোন নাম্বারঃ 01718863323

ডিমলায় হতে যাচ্ছে সোলার প্যানেল নির্মাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : রবিবার, ১১ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫ Time View

 

মো: জহুরুল ইসলাম ডিমলা উপজেলা প্রতিনিধিঃ

বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনেই নীলফামারী ডিমলা উপজেলায় সোলার পাওয়ার প্লান্ট স্থাপন করতে চলছে একটি ইউরোপিয়ান নরওয়েভিত্তিক বিদেশি কোম্পানি স্কেটেক।

উপজেলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নের ডালিয়া বাইশপুকুর মৌজায় এক হাজার উনিশ শত হেক্টর জমির মধ্যে একশত তেরাশি দশমিক বিরাশি একর জমিতে

বিদেশি কোম্পানি সোলার পাওয়ার প্লান্ট স্থাপনের কাজ করবে।

এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে মানুষ ও তরুণ জনগোষ্টির আনন্দে একাকার হয়ে পড়ে।

জানা গেছে, জমির মালিক ও স্থানীয় সাধারণ মানুষ কাছ থেকে, এই জমি গুলোতে ১৯৭১ এর পর হতে অনেক চেষ্টা করেও ফসল ফলাতে সম্ভব হয়নি।

উক্ত জায়গায় এই সোলার পাওয়ার প্লান্ট স্থাপন হলে এই এলাকার মানুষ ও তরুণ জনগোষ্টির জীবন জীবিকা এবং চলার পথ প্রসারিত হবে।

জমির মালিকেরা সঠিক মূল্যে স্কেটের সোলার কোম্পানির কাছে জমি বিক্রি করছে।

এতে তারা আনন্দিত হচ্ছে।সোলার পাওয়ার প্লান্ট সুত্রে জনা যায়, ২০১৭ সালেরে ২৩শে মার্চ তৎকালিন জ্বালানি খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের নবায়নযোগ্য জ্বালানি অধিশাখার আহ্বায়কের তদন্ত রিপোর্ট অনুসারে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা করেন।

জমাকৃত প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রকল্প যুক্ত একশত তেরাশি দশমিক বিরাশি একর জমি সম্পুর্ণ কাশবন ও বালুচর রয়েছে যা মাঠ হিসাবে পতিত রয়েছে।এ ব্যাপারে খালিশা চাপানী ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান সরকার,

জেলা পরিষদ সদস্য ও প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার আলহাজ্ব সেলিম সরকার লেবু, ল্যান্ড এজেন্ট বরিউল ইসলাম, হাসানুর রহমান ও ওসমান গণি জানান, বাইশপুকুর মৌজায় যা ছিল এক সময় কাশবন ও বালুচরে ভরপুর,

বিকালে শেয়ালের হুক্কাহুয়া ডাক ভয়তে একা আসতে চাইত না কেউ রাখালেরা গরু, মহিষ চড়াতো দল বেধে।একটু ছায়ার জন্য করতো হা-হা-কার, এমন জমি গুলোতে যদি কোনো কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠে তবে পাল্টে যাবে বর্তমান ও ভবিষ্যত তরুণ প্রজন্ম এবং মানুষের জীবনমান।

সোসাল মিডিয়ায় সেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

বিভাগ

© All rights reserved © 2018-2021
Development Nillhost