1. admin@manobkollan.com : admin :
  2. mkltdnews@gmail.com : Anamul Gazi : Anamul Gazi
  3. mdrifat3221@gmail.com : MD Rifat : MD Rifat
  4. mkltd2020@gmail.com : Mehedi Hasan : Mehedi Hasan
  5. riff1431@gmail.com : Shariar R. Arif : Shariar R. Arif
হিজড়ারা যেন এখন লাইসেন্স ধারী সন্ত্রাসী ! তাদের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ - মানব কল্যাণ - মানব কল্যাণ
শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৪৪ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
আসসালামু আলাইকুম  মানবকল্যাণ এর সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য  আপনাকে অভিনন্দন। আমরা আপনাদের সহযোগীতায় একদিন শিখরে পৌছাব "ই"। ইনশাআল্লাহ । বিজ্ঞপ্তিঃ সারাদেশব্যপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলিতেছে।   ই-মেইলঃ info@manobkollan.com ফোন নাম্বারঃ 01718863323

হিজড়ারা যেন এখন লাইসেন্স ধারী সন্ত্রাসী ! তাদের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ – মানব কল্যাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০
FB IMG 15997345739071014 মানব কল্যাণ

 

মোঃ মহি উদ্দিন নিজস্ব প্রতিনিধি নোয়াখালীঃ

নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে হিজড়াদের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার টাকা তারা চাঁদাবাজি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জায়গা থেকে এসে কোম্পানীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে বিয়ে বাড়িতে তারা চাঁদাবাজি করছে। তাদের (হিজড়া) এ অত্যাচার দেখেও অনেকে না দেখার ভান করছেন।

হিজড়াদের প্রধান টার্গেট হলো বিয়ে বাড়ি। দল বেঁধে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে অবস্থান বুঝে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করে তারা। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তারা শরীর থেকে জামা-কাপড় খুলে অশোভন আচরণ করে এবং নানা অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। পরে মানসম্মানের ভয়ে ওদের চাহিদা পূরণ করে বিদায় করতে হয়।
জানা যায়, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ অঞ্চলের আনাচে-কানাচে তাদের বিচরণ। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তাদের এজেন্টও আছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। ওই এজেন্টরা এলাকার কোনো বিয়ে, জন্ম ও বিবাহবার্ষিকীতে তাদের খোঁজ দিয়ে থাকেন। সময় মতো বিভিন্ন অনুষ্ঠানে হানা দেয় তারা।

এ ছাড়া বিভিন্ন হাট-বাজারে একেক দিন একক গ্রুপ গিয়ে প্রতিনিয়ত চাঁদাবাজি করছে। কেউ চাঁদা দিতে না চাইলে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি দেখিয়ে অপমান করে তারা। তাই সম্মান বাঁচাতে বাধ্য হয়েই চাঁদা দেন সাধারণ মানুষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার বসুরহাট বাজারের এক ব্যবসায়ী জানান, হাটের দিনসহ প্রায়ই এসে হিজড়ারা টাকা তোলে। টাকা না দিতে চাইলে বিভিন্ন গালমন্দসহ মারধর ও করে ব্যবসায়ীদের। ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই ব্যবসায়ী আরও বলেন, কোন দেশে বাস করি জানি না, এটা যেন মগের মুল্লুক চলছে।

হিজড়াদের চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে সাধারণ মানুষকে রক্ষা করতে প্রশাসনের সু দৃষ্টি কামনা করছে সচেতন মহল।

সোসাল মিডিয়ায় সেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

বিভাগ

Development Nillhost
error: Content is protected !!