1. admin@manobkollan.com : admin :
  2. mkltdnews@gmail.com : Anamul Gazi : Anamul Gazi
  3. mkltd2020@gmail.com : Mehedi Hasan : Mehedi Hasan
  4. riff1431@gmail.com : Shariar R. Arif : Shariar R. Arif
দেশে করোনায় মৃত ৫৬ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের কম - মানব কল্যাণ - মানব কল্যাণ
বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৩ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচির অংশ হিসাবে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে নোয়াখালীতে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত মৃত্যুর রহস্য উৎঘাটনের জন্য দাফনের পনের দিন পর এক নবজাতকের লাশ কবর থেকে উত্তোলন ডিমলায় চুরি হওয়া গরু ফেরত পেলেন কৃষক তরুণ আলো রক্তদান ফাউন্ডেশনের ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ ভান্ডারিয়া সরকারি কলেজে নতুন কমিটি অনুমোদন আমান উল্লাহ মহাবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতিকে অপসারনের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ডিমলায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসাবে বিএনপি’র মানববন্ধন অনুষ্ঠিত বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল’ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস-২০২০’ উদযাপিত দর্শনা হিমেল আবা‌সিক হোটেলে দর্শনা থানা পু‌লি‌শের অ‌ভিযান যুবতীসহ বিজিবি সদস্য আটক ২ ডিমলায় ৩য় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা গ্রেফতার ১

দেশে করোনায় মৃত ৫৬ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের কম – মানব কল্যাণ

মেহেদী হাসান
  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০২০

গত ডিসেম্বরে দেশে আসেন যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী এক তরুণী। মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে তাঁর জ্বর আসে। কিছুদিন পর শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। নমুনা পরীক্ষায় তাঁর করোনা শনাক্ত হয়। চিকিৎসকের পরামর্শে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। দুই দিন পর ২১ মে মারা যান তিনি।

পুরান ঢাকার ৫৫ বছর বয়সী ব্যবসায়ী আতাউর রহমানের রক্তচাপজনিত সমস্যা ছিল। গত জুনে জ্বর ও শ্বাসকষ্টের পর তাঁর ফুসফুসে সংক্রমণ ধরা পড়ে। বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি। পরে তাঁর করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। নমুনা পরীক্ষার ফল আসার দেড় ঘণ্টার মধ্যেই মারা যান তিনি।

ওই দুজনের মতো ৬০ বছরের কম বয়সী এমন অনেকেই দেশে মারা যাচ্ছেন। দেশে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ৪৪ শতাংশেরবয়স ৬০ বছরের বেশি। ৫১ শতাংশের বয়স ৩১ থেকে ৬০ বছর। আর বাকি ৫ শতাংশের বয়স ৩০ বছরের কম।

Lifebuoy Soap
করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন ইউরোপ ও আমেরিকায়। অথচ সেখানকার চিত্র বাংলাদেশের চেয়ে ভিন্ন। পাশের দেশ ভারতেও একই অবস্থা। বিভিন্ন পরিসংখ্যান তুলে ধরার আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান স্ট্যাটিস্টা বলছে, ইতালিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতদের মধ্যে ৯৫ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের বেশি। আর সুইডেনে ৯৬ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর কন্ট্রোল ডিজিজ অ্যান্ড প্রিভেনশন সেন্টার (সিডিসি) বলছে, দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের ৮০ শতাংশের বয়স ৬৫ বছরের বেশি। আর ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী দেশটিতে ৬০ বছরের বেশি বয়সীরা মারা গেছেন ৫৩ শতাংশ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মৃত ব্যক্তির বয়স ও লৈঙ্গিক পরিচয় দিলেও মৃত্যুর কারণ, উপসর্গ বা স্বাস্থ্যসংক্রান্ত কোনো তথ্য প্রকাশ করে না। সব তথ্য বিশ্লেষণ করে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান করা জরুরি।

জানতে চাইলে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, এখানে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার চর্চা নেই। তাই অনেকেই নিজের রোগ সম্পর্কে জানেন না। করোনায় মৃতের ক্ষেত্রে রোগীর অন্য রোগেরও ভূমিকা আছে। কয়েকটি শিশুও মারা গেছে দেশে, যাদের অসংক্রামক ব্যাধি ছিল।

তেজগাঁওয়ের ৪৩ বছর বয়সী এক ব্যক্তি কক্সবাজারে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থায় কাজ করতেন। জুনের শুরুতে জ্বর আসে তাঁর। এক
সপ্তাহ পর ছুটি নিয়ে ঢাকায় আসেন। নমুনা পরীক্ষা করে করোনা শনাক্ত হয় তাঁর। একপর্যায়ে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। অ্যাম্বুলেন্স আসার আগেই মারা যান তিনি। অন্য কোনো রোগ ছিল কি না, জানে না পরিবার।

গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ হাজার ৪৯৬ জন। এর মধ্যে ৭৯ শতাংশ পুরুষ ও ২১ শতাংশ নারী। অন্য দেশের তুলনায় দেশে নারীর মৃত্যুর হার কম। এমনকি বিভিন্ন দেশের তুলনায় করোনায় মৃত্যুহারও কম দেশে। বিশ্বে করোনায় গড় মৃত্যুহার ৪ দশমিক ৪৫ শতাংশ। ইউরোপের কয়েকটি দেশে এটি ১৪ শতাংশ ছাড়িয়েছে। তবে দেশে মৃত্যুহার ১ দশমিক ২৭ শতাংশ। ভারতেও এটি ২ শতাংশের বেশি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, দেশে করোনায় মৃতের প্রায় ৪৪ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের বেশি। ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সী ৩০ শতাংশ, ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী ১৪ শতাংশ, ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সী ৭ শতাংশ, ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সী ৩ শতাংশ, ১১ থেকে ২০ বছর বয়সী ১ শতাংশ। বাকিদের বয়স ১০ বছরের কম।

অসংক্রামক ব্যাধিকে মৃত্যুর বড় কারণ হিসেবে দেখছেন আইইডিসিআরের উপদেষ্টা মুশতাক হোসেন। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, দেশে ৫০ বছর পার হলেই নানা অসংক্রামক ব্যাধিতে ভুগতে থাকেন অনেকে। তাই ইউরোপ-আমেরিকায় ৭০-৮০ বছর পার হলে যে ঝুঁকি, এখানে ৫০ পার হলেই সেই ঝুঁকি। তিনি বলেন, দেশে কমিউনিটিভিত্তিক স্বাস্থ্যসেবা গড়ে তোলা দরকার।

সোসাল মিডিয়ায় সেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

বিভাগ

মানব কল্যাণ ডট কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Terms And Conditions |Privacy Policy  | About Us | Contact  Us
Development Nillhost