রাঙ্গাবালীতে কমিউনিটি ক্লিনিকে বেড়েছে রোগিদের ভিড়

ক্লিনিকে বেড়েছে রোগিদের ভিড়

রাঙ্গাবালীতে কমিউনিটি ক্লিনিকে বেড়েছে রোগিদের ভিড়

পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী উপজেলা ঘোসনার ৮ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো হয়নি হাসপাতাল। যার কারনে উপজেলার সাধারন রোগীরা চিকিৎসা সেবা নিতে ভিড় জমাচ্ছে উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে। তাই চিকিৎসা সেবা জনগণের কাছে পৌছে দিতে রোগীবান্ধব হয়ে উঠেছে এ উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিক গুলো। ‘শেখ হাসিনার অবদান, কমিউনিটি ক্লিনিক বাঁচায় প্রান’ এই স্লোগান বাস্তবায়নই তাদের মূল লক্ষ্য। এই উপজেলায় ১২ টি কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবা কেন্দ্র রয়েছে। কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি)দের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে ক্লিনিক গুলো।

রাঙ্গাবালী উপজেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে ঘুরে দেখা যায়, ঠান্ডা জনিত বিভিন্ন রোগ নিয়ে ক্লিনিকগুলোতে ভিড় জমাচ্ছেন নারী, শিশুসহ বৃদ্ধরা। উপজেলার মৌডুবী ইউনিয়নের মুখরবান্দা কমিউনিটি ক্লিনিকে গেলে প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় ক্লিনিকে আসা ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত শিশু আরিয়ানের মা বিলকিস বেগমের সাথে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বাচ্চা অসুস্থ তাই এখানে নিয়ে আসছি। এই উপলোয় কোনো সরকারী হাসপাতাল নেই । আমরা গরীব ,তাই এখানে আসা ছাড়া কোনো উপায় নেই। উপজেলার কয়েকটি ক্লিনিক ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ মৌসুমী জ্বর, সর্দি, কাশি , গলাব্যাথা, পেটব্যাথা, ডায়রিয়া ,আমাশয়, মাথা ব্যাথা ,বমি, এ ধরনের সমস্যা নিয়ে আসা রোগীদের সেবা দিচ্ছেন কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার ( সিএইসসিপি)রা।

জানা যায়, ক্লিনিকগুলোতে প্যারাসিটামল,মক্সিলিন, অ্যামক্সিলিন, সালবিটামল সিরাপ, অয়নমেন্ট মলমসহ ৩০ টি আইটেমের ওষুধ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মৌডুবী মুখরবান্দা কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) মোঃ নাঈমুর রহমান বলেন, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামে এ কমিউনিটি ক্লিনিক হওয়ায় এবং কোনো সরকারী হাসপাতাল না থাকায় এখানে সল্প আয়ের মানুষগুলো আসে সেবা নিতে। আমরা প্রতিনিয়ত তাদের সেবা দিচ্ছি। আমরা সপ্তাহে ৬ দিন শিশু, বৃদ্ধ এবং মাতৃসেবা প্রদান করি।

Author: Mansur Talukder

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *